বদভ্যাসেই বেড়ে যায় রক্তে শর্করা

7

অনলাইন ডেস্ক: আজকের এই কর্ম ব্যস্ততার যুগে মানুষ তাদের স্বাস্থ্যের দিকে বিশেষ মনোযোগ দিতে পারছে না। আর, অনিয়মিত খাদ্যাভ্যাস এবং জীবনযাত্রার কারণে গোপনেই শরীরে বাসা বাঁধছে নানা রোগ।

ডায়াবেটিসও এমনই একটি রোগ, যার প্রধান কারণ আপনার অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা। ব্লাড সুগার বাড়ার কারণে শরীরে নানা জটিলতা দেখা দেয়। চোখ, কিডনি, লিভার, হার্ট ও পায়ে বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে শুরু করে। এমনকি ডায়াবেটিস প্রাণঘাতীও হতে পারে।

অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন ছাড়াও দৈনন্দিন জীবনে কিছু বাজে অভ্যাসের কারণে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে। আসুন জেনে নেওয়া যাক, রোজের যে যে বদভ্যাসের কারণে রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়তে পারে –

ব্রেকফাস্ট না করা

সকালের জলখাবার সত্যিই দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাবার। ইউএস সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (CDC) অনুসারে, ব্রেকফাস্ট না করে একেবারে দুপুরের লাঞ্চ এবং রাতের ডিনার করলে রক্তে শর্করার পরিমাণ বাড়তে থাকে।

সানবার্ন

খুব বেশি রোদে পোহানোর ফলেও রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। CDC অনুসারে, সানবার্নের কারণে ব্যথা হতে পারে, যার কারণে স্ট্রেস বাড়ে, এর ফলে রক্তে শর্করার মাত্রাও বাড়ে।

কফি

কফি অনেকেরই অত্যন্ত প্রিয়। কফি প্রেমীদের কাছে সারা দিনে ৪-৫ কাপ, এমন কিছু ব্যাপার না। কিন্তু কফি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কি স্বাস্থ্যকর? CDC-র মতে, কফি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য একেবারেই ভাল নয়। এমনকি চিনি ছাড়াও স্বাস্থ্যকর নয়।

অপর্যাপ্ত ঘুম

শারীরিক ও মানসিক দিক থেকে একেবারে সুস্থ থাকতে হলে রোজ পর্যাপ্ত ঘুম খুব প্রয়োজনীয়। CDC বলে, ঠিকমতো ঘুম না হলে বা ঘুমের অভাবের কারণে রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়তে পারে।

মাড়ির সমস্যা

আমেরিকান ডেন্টাল অ্যাসোসিয়েশন (JADA) জার্নালের একটি আর্টিকেল অনুসারে, মাড়ির রোগ হলেও রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ে। এর ফলে টাইপ ২ ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।

ডিহাইড্রেশন

শরীরে অপর্যাপ্ত জলও রক্তে উচ্চ শর্করার কারণ। ডিহাইড্রেশনের কারণে হাইপারগ্লাইসেমিয়া হতে পারে। রক্তে উচ্চ শর্করার কারণে ঘন ঘন প্রস্রাব হয়, যার ফলে ডিহাইড্রেশন আরও গুরুতর দিকে যায়।

Previous articleকাল হল ১৮ লক্ষ টাকার ঘড়ি
Next articleবিএনপি নেতাদের লজ্জা থাকলে সেতুতে ওঠার আগে প্রধানমন্ত্রী-জাতির কাছে ক্ষমা চাইতেন: হাছান মাহমুদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here