পরমাণু শক্তি আমরা শান্তির জন্যই ব্যবহার করব: প্রধানমন্ত্রী

20

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র হয়ে যাওয়ার পর দেশের দক্ষিণাঞ্চলেও আরেকটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করতে চান। 

তিনি বলেন, দক্ষিণাঞ্চলে জায়গা খুঁজছি। সেখানে শক্ত মাটির জায়গা পাওয়া খুবই কঠিন। তারপরও বিভিন্ন দ্বীপসহ ওই অঞ্চলে জরিপ করছি। রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র হয়ে যাওয়ার পর আমরা আরেকটি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করবো, যেখানে ভালো জায়গা পায়। আমার ইচ্ছা, পদ্মার ওপারেও করব। আশা করছি, এ ব্যাপারে কোনও অসুবিধা হবে না।

রোববার (১০ অক্টোবর) রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের (আরএনপিপি) প্রথম পারমাণবিক চুল্লিপাত্র স্থাপন কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কানফারেন্সের মাধ্যমে এ কাজের উদ্বোধন করেন তিনি।

প্রধামন্ত্রী বলেন, দক্ষিণাঞ্চলে যদি আমরা আরেকটা পরমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করতে পারি। তাহলে বিদ্যুতের জন্য আর কোনও অসুবিধা হবে না। তারপরও আমরা বহুমুখী বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করে যাচ্ছি এ জন্য যে, বিদ্যুৎ সুবিধা যেন মানুষ পায়, অব্যাহত থাকে।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ বিতরণের জন্য সঞ্চালন লাইন নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। 

তিনি বলেন, পরমাণু শক্তি আমরা শান্তির জন্যই ব্যবহার করব। পরমাণু শক্তি দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। সেটা গ্রামের মানুষের কাছে যাবে। তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নতি হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০২৩ সালের মধ্যে এখান থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং ২০২৪ সালে দ্বিতীয় ইউনিট শুরু করতে পারব বলে আমরা আশাবাদি।

তিনি বলেন, আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হিসাবে গড়তে চাই। এখন উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। কিন্তু এখানে থেমে গেলে চলবে না। ৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ গড়ব। ২০৭১ সালে স্বাধীনতার শতবর্ষ উদযাপন হবে। নিশ্চয় নতুন প্রজন্ম একটি সুন্দর, উন্নত, সমৃদ্ধশালী ও আধুনিক প্রযুক্তিসমৃদ্ধ দেশ হিসাবে স্বাধীনতার শতবর্ষ উদযাপন করবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ২১০০ সাল পর্যন্ত ডেলটা প্ল্যানও করে দিয়েছি। যাতে এই দেশকে আর কোনোদিন পিছিয়ে পড়তে না হয়। আর যেন কোনও শকুনির থাবা না পড়ে বাংলাদেশের ওপর। উন্নতি ও অগ্রগতি অপ্রতিরোধ্য গতিতে যাতে এগিয়ে যায় সেটাই আমরা চায়।

দেশের ৯৯ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে বিষয়টি আবারও জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষের যতটা আর্থিক সচ্ছলতা আসবে, তাদের চাহিদাও বাড়তে থাকবে। তাছাড়া, আমরা ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছি। সেখানে শিল্পায়ন হবে। যত বেশি শিল্পায়ন হবে, ততবেশি বিদ্যুতের চাহিদাও তৈরি হবে। সেটাকে মাথায় রেখে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও সঞ্চালনের পরিকল্পনা আমরা নিয়েছি।

Previous articleএকনেকে নয়টি প্রকল্পের অনুমোদন
Next articleদক্ষিণাঞ্চলে আরেকটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করতে চাই: প্রধানমন্ত্রী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here