ইউক্রেন শরণার্থীর প্রতি মানবতা দেখাতে গিয়ে সর্বনাশ!

15

অনলাইন ডেস্ক: স্বামী টনি গারনেটন। তিন সন্তানের জনক-জননী তারা, পশ্চিম ইউক্রেনের যুদ্ধ বিধ্বস্ত লাভিভ শহরের ২২ বছরের অপরূপ সুন্দরী সোফিয়া কারকাদিম ব্রিটেনে ঢুকে অকুল পাথারে পড়েন।

তার বসবাসের জায়গা ছিল না। ফলে এগিয়ে আসেন লরনা। তাকে আশ্রয় দেন নিজের বাসায়। কিন্তু কে জানে সেই মানবতা দেখানোই কাল হয়ে আসবে লরনা গারনেটের জন্য! সোফিয়া কারকাদিম তার ১০ বছরের সাজানো সংসার ১০ দিনেই ভেঙেচুরে দেবে তা তিনি ঠাহর করতে পারেননি কখনো।

ইউক্রেন শরণার্থীর প্রতি মানবতা দেখাতে গিয়ে সর্বনাশ হয়েছে লন্ডনের গৃহবধূ লরনা গারনেটের। ভেঙে গেছে তার ১০ বছরের সাজানো সংসার।

এক সঙ্গে বসবাসের সুযোগে ভেতরে ভেতরে তার স্বামী টনি গারনেট চোরাই প্রেম শুরু করেন ইউক্রেনের অতি সুন্দরী সোফিয়া কারকাদিমের সঙ্গে। একদিন নিজের ঔরসজাত সন্তান, প্রিয়তমা লরনাকে ফেলে প্রেমিকাকে বগলদাবা করে চম্পট দেন টনি গারনেট। এ খবরে হূদয় ভেঙে খান খান লরনা গারনেটের।

সোফিয়া কারকাদিম তাদের সংসারে ওঠার মাত্র ১০ দিনের মধ্যে ঘটে যায় সব। এরই মধ্যে টনি গারনেট ও সোফিয়া কারকাদিমের মধ্যে অন্তরঙ্গতা চরম আকার ধারণ করে। তারই পরিণতিতে তারা ঘর ছাড়েন।

টনি গারনেট ২৯ বছর বয়সি একজন নিরাপত্তা প্রহরীর চাকরি করেন। বসবাস ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারের ব্রাডফোর্ডে। টনি গারনেট মিডিয়াকে বলেছেন, ইউক্রেনের সুন্দরী সোফিয়া কারকাদিমের প্রেমে পড়েছেন তিনি। জীবনের বাকিটা সময় তার সঙ্গে কাটাতে চান।

Previous articleরোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরও সমর্থন চান প্রধানমন্ত্রী
Next articleবিশ্বের সৎ ৩ জন প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে শেখ হাসিনা একজন: ওবায়দুল কাদের

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here