‘‘লোক লৌকিক অলোক আলোক” শিরোনামে মাসব্যাপী ২২তম নবীন চারুকলা প্রদর্শনীতে মাসব্যাপী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ কিউরোটরিয়াল প্রকল্প

55
Exhibition
Exhibition

গত ৩০ নভেম্বর ২০২০ খ্রি. বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, ঢাকায় উদ্বোধন হলো ২২তম নবীন চারুকলা প্রদর্শণীর।‍ উক্ত প্রদর্শণীর শিরোনাম ছিল ‘‘লোক লৌকিক অলোক আলোক”। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থীদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও ভালবাসার ফসল ‘‘লোক লৌকিক অলোক আলোক”। এখানে বাংলার লোকঐতিহ্যের সাথে বির্বতনের সুর-সন্ধান করা হয়েছে।

গ্রামীন ঐতিহ্যের শেকড়সমৃদ্ধ দেশ বাংলাদেশ। এ আবহমান বাংলাদেশের গ্রামীণ পরিবেশ ও লোকজীবনধারা এদেশের সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্যের উপর প্রভাব বিস্তার করেছে। ঐতিহ্যবাহী লোকশিল্প বাংলার লোকসমাজের সৃষ্টি এবং রুচির পরিচায়ক। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে বাংলার জাতিগোষ্ঠীর আত্মপরিচয়। নগরায়ণের ফলে আমাদের স্বকীয় লোকসংস্কৃতি প্রভাবিত হয়েছে। তাই দেখা যায় নগরের আলোকছটায় লোকঐতিহ্য কখনো কখনো অলোকতলে হারিয়ে যায়। চকচকে নগরায়ণের প্রভাবে প্রাণবন্ত লোকঐতিহ্য বিলুপ্ত হবার পথে। প্রযুক্তির অবদানে বিপর্যস্ত লোকসংস্কৃতি নগরসংস্কৃতির পথে হাঁটছে। আবার প্রযুক্তির কল্যাণে এই লোকজ মণি-মাণিক্য দিগন্ত বিস্তৃতও হয়েছে। এ কথা অনস্বীকার্য গ্রামীণ জীবণপ্রণালী থেকে শুরু করে পারিপার্শ্বিক প্রাকৃতিক রূপ লোক ঐতিহ্যের মৌলসুত্র। লোকসংস্কার-লোকাচার-প্রথা-ঐতিহ্য ভরপুর করেছে আমাদের বাংলাদেশকে, আমাদের মননকে।

লোক লৌকিক অলোক আলোক- শীর্ষক শিল্পকর্মে মূলত লোক ঐতিহ্যের সাথে বির্বতনের সুর-সন্ধান করা হয়েছে।

উক্ত প্রদর্শণীর কিউরেটর ছিলেন ড. মুহাম্মদ এমদাদুর রাশেদ (রাশেদ সুখন)
রাশেদ সুখন শিল্পী, গবেষক ও শিল্প শিক্ষক। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগ থেকে ড্রইং অ্যান্ড পেইন্টিং নিয়ে অনার্স, মাস্টার্স ও পিএইচ.ডি সম্পন্ন করেন। তিনি গবেষণাধর্মী লেখালেখি সাথে সম্পৃক্ত এবং বিভিন্ন পত্রিকা ও জার্নালে সম্পাদনার সাথে যুক্ত রয়েছেন। মূলত চিত্রকলা বিষয়ক লেখালেখিতেই তার আগ্রহ। তিনি বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেছেন ও পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ফোরামে চিত্রকলা নিয়ে কাজ করেছেন, লেকচার দিয়েছেন, ক্লাস নিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে চারুকলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এবং বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রর্দশনীতে অংশগ্রহণকারী শিল্পীবৃন্দ :
তর্পন কুমার পাল (জন্ম ১৯৯০)
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের ড্রইং অ্যান্ড পেইন্টিং থেকে লেখাপড়া সম্পন্ন করেছেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী, বাংলাদেশের বিভিন্ন জাতীয় প্রদর্শনী, যৌথ চিত্র প্রদর্শনী এবং আন্তর্জাতিক চিত্র প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেছেন এবং আন্তর্জাতিকভাবে ৪টি পুরস্কার লাভ করেছেন। বর্তমানে তিনি ফ্রীলান্স আর্টিস্ট হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

শর্মিষ্ঠা রায় (জন্ম ১৯৯৩)
তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা বিভাগের ড্রইং এন্ড পেইন্টিং স্ট্রীমে এম.এফ.এ অধ্যয়নরত। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী, বিভিন্ন জাতীয় চিত্রকর্ম প্রদর্শনী, বন্ধন ইন্টারন্যাশনাল প্রদর্শনী, চায়না বাংলাদেশ প্রদর্শনীসহ আরো প্রায় ৩০টির মতো অন্যান্য প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করেছেন। তিনি এই পর্যন্ত ২টি এওয়ার্ড অর্জন করেছেন।

আরিফ বাচ্চু (জন্ম ১৯৯৩)
তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা বিভাগের ড্রইং এন্ড পেইন্টিং স্ট্রীমে এম.এফ.এ অধ্যয়নরত। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী, বিভিন্ন জাতীয় প্রদর্শনী এবং দেশের বাইরে প্রায় ২০ টি প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করেছেন। তিনি বিভিন্ন প্রদর্শনীতে ৯ টি এওয়ার্ড অর্জন করেছেন।

আবুল হাসনাত শুভ (জন্ম ১৯৯৪)
তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা বিভাগে গ্রাফিক ডিজাইন স্ট্রীমে (২০১২-১৩) এম.এফ.এ. অধ্যয়নরত আছেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন সহ আরো অন্যান্য ডিজাইন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করেছেন।

ধর্ম নারায়ন রায় (ভানু) (জন্ম ১৯৯৪)
ধর্ম নারায়ন রায় ভানু জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের ড্রইং এন্ড পেইন্টিং স্ট্রীমে এম.এফ.এ. অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী। তিনি চারুকলা বিভাগের বার্ষিক চিত্রপ্রদর্শনীসহ অন্যান্য চিত্রপ্রদর্শনী ও কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছেন। ফোকাস বাংলাদেশ আয়োজিত চতুর্থ তম ‘আন্তর্জাতিক টিউন অফ আর্ট’ ফেস্টিভাল (২০১৯) পুরস্কৃত হয়েছেন।

বৃষ্টি পাঠান (জন্ম ১৯৯৭)
বৃষ্টি পাঠান জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা বিভাগের ছাপচিত্র স্ট্রীমে বি.এফ.এ. সম্মান অধ্যয়নরত। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী, বাংলাদেশ জাতীয় শিল্পকলাসহ আরো অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করেছেন।

খাদিজা আক্তার মলি (জন্ম ১৯৯৭)
খাদিজা আক্তার মলি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা বিভাগের ছাপচিত্র স্ট্রীমে বি.এফ.এ. সম্মান অধ্যয়নরত। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী, বাংলাদেশ জাতীয় শিল্পকলাসহ আরো অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করেছেন। তিনি বার্ষিক চিত্রকর্ম প্রদর্শনীতে পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

রিদুয়ানূর রহমান আশিক (জন্ম ১৯৯৭)
রিদুয়ানূর রহমান আশিক জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা বিভাগের ছাপচিত্র স্ট্রীমে বি.এফ.এ. সম্মান অধ্যয়নরত। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী, বাংলাদেশ জাতীয় শিল্পকলাসহ আরো অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করেছেন। তিনি বার্ষিক চিত্রকর্ম প্রদর্শনীতে পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

প্রর্দশনী চলবে ডিসেম্বর ২৯ ডিসেম্বর ২০২০ খ্রি. র্পযন্ত। যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা র্পযন্ত প্রর্দশনী সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here